শুক্রবার, ০৬ অগাস্ট ২০২১, ০৬:৪৭ পূর্বাহ্ন
বিজ্ঞপ্তি
* To read Daily Banglar Chokh News in different languages ​​by Google Translator, going to `Select Language' option in the main menu.* ডেইলি বাংলার চোখের সংবাদ গুগল ট্রান্সলেটর দ্বারা বিভিন্ন ভাষায় পড়তে মেইন মেনুতে সিলেক্ট ল্যাংগুয়েজ অপশন এ যেয়ে ভাষা নির্ধারণ করুন* गूगल अनुवादक द्वारा दैनिक बांग्ला आई न्यूज को विभिन्न भाषाओं में पढ़ने के लिए, मुख्य मेनू में भाषा का चयन करें विकल्प पर जाकर भाषा का चयन करें।*

মাগুরায় লকডাউন: বিপদে ব্যবসায়ীসহ নিম্ন আয়ের মানুষ

মাগুরা প্রতিনিধি
হালনাগাদ : বৃহস্পতিবার, ২২ এপ্রিল, ২০২১, ৪:২২ পূর্বাহ্ণ

করোনা ভাইরাস সংক্রমণ প্রতিরোধে মাগুরায় চলছে লকডাউন। বিনা প্রয়োজনে ঘর থেকে বের না হওয়ার জন্য স্থানীয় প্রশাসনের পক্ষ থেকে রয়েছে নিষেধাজ্ঞা। দোকানপাট খোলা রাখার ক্ষেত্রেও গণবিজ্ঞপ্তি দিয়েছে প্রশাসন। নিত্যপ্রয়োজনীয় ও সেবা সংশ্লিষ্ট ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ছাড়া বাকি দোকানপাট বন্ধ রাখার ক্ষেত্রেও রয়েছে বিশেষ নির্দেশনা।

বন্ধ রয়েছে সব ধরণের শিক্ষা ও গণপরিবহন। ছোট যানবাহন চলাচলে রয়েছে নানা নিয়মকানুন। তাছাড়া প্রাণঘাতি করোনা ভাইরাস আতঙ্কে লোকজন চলাফেরা কম করছে। তাই হঠাৎ যেন পাল্টে গেছে জেলার দূশ্যপট।

এতে বিপদে পড়েছে ব্যবসায়ীসহ নিম্ন আয়ের মানুষ। তবে ঈদকে সামনে রেখে বেশী ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে কাপড় ও জুতা-স্যান্টেল ব্যবসায়ীরা। নিম্ন আয়ের মানুষের কর্মসংস্থান কমেগেছে। ফলে উপজেলার বিভিন্ন এলাকার অতিদরিদ্র দিনমজুর, ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীসহ খেটে খাওয়া মানুষ পড়েছে বিপাকে।

সরেজমিনে যেয়ে দেখা যায়, নিত্যপ্রয়োজনীয় ও সেবা সংশ্লিষ্ট ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ছাড়া উপজেলার প্রায় মার্কেটগুলো বন্ধ। রাস্তা-ঘাট ফাঁকা খাবার হোটেলগুলো বন্ধের অপেক্ষায়। নিত্যপ্রয়োজনীয় দোকানে শুধু ক্রেতা। তাও আগের তুলনায় কম। বেশী প্রয়োজন ছাড়া ঘর থেকে বের হচ্ছে না সাধারণ মানুষ।

আর খেটে খাওয়া কর্মজীবি মানুষ জীবিকার তাকিদে বাইরে বের হলেও তাদের চোখেমুখে লক্ষ্য করা যাচ্ছে আতঙ্কের ছাপ।
চায়ের দোকানদার শ্যামল বলেন, করোনা ভাইরাসের কারণে দোকান বন্ধ রাখতে হচ্ছে। আয়ের একমাত্র অবলম্বন এই দোকান। এটা বন্ধ থাকায় পরিবার পরিজন নিয়ে খুব সমস্যার মধ্যে আছি। ভ্যান চালক মহির মোল্যা বলেন, করোনার ভয়ে মানুষ রাস্তা-ঘাটে বের হচ্ছে না। যাত্রী না থাকায় আয়-ইনকাম প্রায় বন্ধ হয়ে গেছে।

মহম্মদপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার রামানন্দ পাল বলেন, জনস্বার্থে এ ধরণের ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। তবে মানুষের যাতে কোনো প্রকার সমস্যা না হয় সে জন্য নিত্যপ্রয়োজনীয় দোকানসহ জরুরি সেবা সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠান খোলা রাখার কথা বলা হয়েছে।

নিম্ন আয়ের মানুষেরা স্বল্প পরিসরে কাজ করার সযোগ পাচ্ছে। তবে এই দূর্যোগ মোকাবেলায় সবাইকে সচেতন হতে হবে এবং সামাজিক দৃরত্ব বজায় রেখে চলতে হবে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরও খবর
Theme Created By Uttoronhost.com