মঙ্গলবার, ২৭ জুলাই ২০২১, ০৪:০৩ পূর্বাহ্ন
বিজ্ঞপ্তি
* To read Daily Banglar Chokh News in different languages ​​by Google Translator, going to `Select Language' option in the main menu.* ডেইলি বাংলার চোখের সংবাদ গুগল ট্রান্সলেটর দ্বারা বিভিন্ন ভাষায় পড়তে মেইন মেনুতে সিলেক্ট ল্যাংগুয়েজ অপশন এ যেয়ে ভাষা নির্ধারণ করুন* गूगल अनुवादक द्वारा दैनिक बांग्ला आई न्यूज को विभिन्न भाषाओं में पढ़ने के लिए, मुख्य मेनू में भाषा का चयन करें विकल्प पर जाकर भाषा का चयन करें।*

কুষ্টিয়া জেলা ছাত্রদলের নতুন কমিটির দাবিতে দেয়ালে দেয়ালে রংবেরঙের পোস্টার

কুষ্টিয়া প্রতিনিধি
হালনাগাদ : রবিবার, ২ মে, ২০২১, ৭:১৫ অপরাহ্ণ

কেন্দ্রীয় বার্তাতে উল্লেখ ছিল বিদ্যমান কুষ্টিয়া জেলা ছাত্রদল কমিটির কোনো কার্যকারিতা না থাকায় উক্ত জেলা কমিটি ও জেলার অধীনস্থ সকল ইউনিটের কমিটি বিলুপ্ত ঘোষণা করা হইলো। কেন্দ্রীয় সংসদ কথা দিয়েছিলেন কুড়ি দিনের মধ্যে কমিটি হবে বা ত্যাগী পরিশ্রমী ও মেধাবী দের দিয়ে কমিটি উপহার দিবেন।

কথা দিয়ে কথা রাখতে না পারায় কর্মীরা শেষমেশ হাতে তুলে নিয়েছেন বিভিন্ন শ্লোগানে রংবেরঙের পোস্টার। ছেয়ে গিয়েছে শহরের গুরুত্বপূর্ণ দেয়ালে রং-তুলি দিয়ে লেখা নির্যাতিত কর্মীদের আর্তনাদ।

শ্লোগানে উঠে এসেছেন

(১) ব্যর্থতার দায়ে সদ্য বিলুপ্ত কমিটির কাউকে কুষ্টিয়া জেলা ছাত্রদলে মানি না, চাইনা, মানবো না

(২) মাদক সেবী, বিবাহিত এদের দিয়ে ছাত্রদলের কমিটি মানি না, চাই না

(৩) কমিটি কমিটি কমিটি চাই কুষ্টিয়া জেলা ছাত্রদলের কমিটি চাই

(৪) পরিশ্রমী নির্যাতিত দের মূল্যায়ন চাই। জেলা ছাত্রদলের কমিটি চাই

(৫) আলোচনা বিবেচনায় ছাত্রদলের কমিটি দ্রুত দেও, দিতেই হবে।

প্রসঙ্গত, বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী ছাত্রদল কুষ্টিয়া জেলা শাখার প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি কারাবরণ কালে বর্তমান আওয়ামী দুঃশাসন আমলে নির্যাতনের শিকার প্রয়াত নেতা এম এ শামীম আরজুর হাত ধরে সাংগঠনিক কার্যক্রম শুরু করে কুষ্টিয়া জেলা ছাত্রদল। তার ধারাবাহিকতায় প্রত্যক্ষ নেতৃত্বে নির্বাচিত তুখোড় তুখোড় ছাত্রনেতা জন্ম নিয়েছে কুষ্টিয়া জেলাতে। রয়েছে গৌরবোজ্জ্বল ইতিহাস।

ছাত্রদলের রাজনীতি সামান্য পিছনের দিকে তাকিয়ে দেখলে দেখা যায়, ২ মার্চ ২০১১ সালে আহবায়ক কামাল উদ্দিন ও সিনিয়র যুগ্ম আহবায়ক আব্দুল হাকিম মাসুদের নেতৃত্বে কুষ্টিয়া জেলায় একটি আহবায়ক কমিটি হয়।

আহবায়ক কমিটি কয়েকটি উপজেলা এবং কয়েকটি ইউনিটের কমিটি করে। স্থানীয় কিছু নেতাদের প্রভাবে এবং কেন্দ্রীয় নেতাদের উদাসীনতায় কর্মকাণ্ড স্থবির হয়ে যায়। শিক্ষা ঐক্য প্রগতি, কর্মীদের শিক্ষা ঐক্য থাকলেও প্রগতির বিকাশ ঘটেনি দীর্ঘদিন।

২ মার্চ ২০১১ সাল থেকে আহবায়ক কমিটি গিয়েছে সাত বছর তিনমাস তিনদিন। সাত বছর সময়ের মধ্যে কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি সুলতান সালাউদ্দিন টুকু – সাধারণ সম্পাদক আলিমুজ্জামান আলিম কমিটির সময় বিদায় হয়েছে। চলে গিয়েছে কেন্দ্রীয় আর একটি কমিটি।

সভাপতি আব্দুল কাদের ভূইয়া জুয়েল – সাধারণ সম্পাদক হাবিবুর রশিদ হাবিব। দুইটা কেন্দ্র কমিটি পরিবর্তন হলেও ভাগ্য বদলাইনি জেলা ছাত্রদলের রাজনীতি।

রাজিব আহসান ও আকরামুল হাসান নেতৃত্বে আশার পর ৫ জুন ২০১৮ সভাপতি মাহফুজুর রহমান মিথুন ও সাধারণ সম্পাদক শিপন বিশ্বাসকে দিয়ে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী ছাত্রদল কুষ্টিয়া জেলা শাখার ছয় সদস্য বিশিষ্ট কমিটি ঘোষণা হয়। ত্যাগী ও নির্যাতিত কর্মীদের সঠিক মূল্যায়ন না হওয়ায় ছয় সদস্যের কমিটি অনুমোদন হবার সাথে সাথেই সিনিয়র সহসভাপতি তাৎক্ষণিক পদত্যাগ করেন।

বর্তমান কেন্দ্রীয় ছাত্রদলের সভাপতি ফজলুর রহমান খোকন এবং সাধারণ সম্পাদক ইকবাল হোসেন শ্যামল কমিটি নির্বাচনের মাধ্যমে হয়ে আসে। তারা সারাদেশে সাংগঠনিক কার্যক্রম সচল করে।

কুষ্টিয়া জেলা ছাত্রদলের ব্যাপারে আগাগোড়া নানান অভিযোগ থাকায় বিদ্যমান কমিটি বিলুপ্ত করেন ২৫ নভেম্বর ২০২০। ৫ জুন ২০১৮ ফুল ফেজ কমিটি করার লক্ষ্যে সুপার সিক্স কমিটি গিয়েছে দুই বছর পাঁচ মাস তিনদিন।

ছাত্র রাজনীতি বলা হয় নেতৃত্ব তৈরির বাতিঘর। কুষ্টিয়া জেলায় বাত্তির নিচে অন্ধকার আছে প্রায় একযুগ। হয়নি কোনো বিশ্ববিদ্যালয়, কলেজ, ওয়ার্ড, ইউনিয়ন, উপজেলা, সদর ও পৌর কমিটি।

প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে উল্লেখ ছিল ছাত্রদল প্রতিটি ইউনিটের সুশৃঙ্খল, সুসংগঠিত এবং গতিশীল করতে কুড়ি দিনের ভিতর অর্থাৎ গেলবছর ১৫ ডিসেম্বর ২০২০ তারিখের ভিতর তৃণমূল নেতা কর্মীদের প্রত্যক্ষ অংশগ্রহণ মাধ্যমে জেলা কমিটি গঠন পক্রিয়া সম্পূর্ণ হবে।

কমিটি গঠন পক্রিয়া অনুযায়ী ৯ ও ১০ ডিসেম্বর ২০২০ ছাত্রদল কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক  কর্মীসভা অনুষ্ঠিত হয়। কর্মী সভায় বিভাগীয় টিম জেলা নেতাকর্মীদের সাথে সাংগঠনিক আলাপ করে।

জেলার পদ প্রত্যাশিত কর্মীদের জেলায় ফিরিয়ে দেন এবং বলেন জেলায় যেয়ে কাজ করতে তারা চুলচেরা বিশ্লেষণ করে জেলায় একটি সুসংগঠিত সংগঠন উপহার দিবেন। কমিটি হবার পক্রিয়া দীর্ঘায়িত হওয়ায় একাধিক ভাবে বিভক্ত হয়ে গিয়েছে কুষ্টিয়া জেলা ছাত্রদল।

বিভিন্ন গলিহলিতে একাধিক ভাগে বিভক্ত করে নাম মাত্র কর্মসূচি মাধ্যমে তৈরী হচ্ছে বর্তমান জেলা ছাত্রদল। রাজপথে না থেকে ফটোসেশনের মধ্যদিয়ে নিজেদের রাজনীতির অবস্থানের জানান দিচ্ছে বিভিন্ন পদ প্রত্যাশিত কর্মীরা। বর্তমানে অস্তিত্ব সংকটে পড়ে যাচ্ছে সংগঠন।

কুষ্টিয়া জেলা ছাত্রদলের কমিটি হওয়া না হওয়ার ব্যাপারে কেন্দ্রীয় ছাত্রদলের সাংগঠনিক সম্পাদক সাইফ মাহমুদ জুয়েল বলেন, কুষ্টিয়া জেলার রাজনীতি অন্যান্য জেলার থেকে বর্তমান একটু কঠিন। ছাত্রদল চাইলেও পেশিশক্তি ভূমিকা পালন করতে পারছে না, পারেনা। আমরা বিবেচনা করে একটি শক্তিশালী কমিটি করতে চাচ্ছি তাই সময় নিচ্ছি।

কুষ্টিয়াতে দমন নিপিড়ন বাস্তবতাটা সবার জানা, সেকারণে ছাত্রদলের অসংখ্য নেতাকর্মী থাকা সত্যেও সঠিক দায়িত্ব নিয়ে কে কাজ করবে সেটা দেখার চেষ্টা করছি। দেয়ালে লেখা শ্লোগান নিয়ে বিভিন্ন পোস্টার এবিষয়ে কথা বলতে চাইলে জুয়েল আরও বলেন, দাবিদাওয়া করা যৌক্তিক তবে এরকম অভিযোগ থাকবেই।

এই ধরনের আমরা আগামীকাল কমিটি দিতে চাই আজকে আমাদের কাছে অভিযোগ আসলো দেয়ালে দেয়ালে পোস্টার বা মাদকাসক্ত ও বিবাহিত। অভিযোগ গুলো এড়িয়ে যাওয়া যায়না সেটা তো বিবেচনা করতে হবে। এসব নানান কারণে কমিটি দিতে একটু দেরি হচ্ছে তবে খুব দ্রুত কমিটি আমরা দিয়ে দিবো আশাকরি।

ছাত্রদল খুলনা বিভাগীয় টিম প্রধান মিজানুর রহমান সজিব বলেন, দেয়ালে দেয়ালে পোস্টার লাগানোর ব্যাপারে আমি আসলে অবগত নই। কার্যকারিতা না থাকায় কুষ্টিয়া জেলা ছাত্রদলের কমিটি বিলুপ্ত করা হয়েছে, নতুন কমিটির কার্যক্রম শেষের দিকে খুব দ্রুত কমিটি দেয়া হবে। সফলতা ব্যার্থতা বিষয় টা সম্পূর্ণ আপেক্ষিক।

সবকিছুই আমরা বিবেচনা করছি। তবে আগামী কমিটিতে মাদকাসক্ত বা বিবাহিত এরা আসবেনা। আমরা চেষ্টা করছি খোঁজখবর নিয়ে খুব দ্রুত জেলা কমিটি দেয়া হবে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরও খবর
Theme Created By Uttoronhost.com