শনিবার, ২৪ জুলাই ২০২১, ০৫:৩১ পূর্বাহ্ন
বিজ্ঞপ্তি
* To read Daily Banglar Chokh News in different languages ​​by Google Translator, going to `Select Language' option in the main menu.* ডেইলি বাংলার চোখের সংবাদ গুগল ট্রান্সলেটর দ্বারা বিভিন্ন ভাষায় পড়তে মেইন মেনুতে সিলেক্ট ল্যাংগুয়েজ অপশন এ যেয়ে ভাষা নির্ধারণ করুন* गूगल अनुवादक द्वारा दैनिक बांग्ला आई न्यूज को विभिन्न भाषाओं में पढ़ने के लिए, मुख्य मेनू में भाषा का चयन करें विकल्प पर जाकर भाषा का चयन करें।*

কুষ্টিয়ায় বৃদ্ধ ও নারীর ওপর হামলা মামলায় আটক- ৭

কুষ্টিয়া প্রতিনিধি
হালনাগাদ : বৃহস্পতিবার, ২৭ মে, ২০২১, ৯:৫৯ অপরাহ্ণ

কুষ্টিয়ার খোকসা উপজেলায় তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে প্রতিপক্ষের হামলায় নারী ও বৃদ্ধসহ চারজন আহতর ঘটনায় থানায় মামলা দায়ের হয়েছে। গতকাল(২৬মে) বুধবার রাতে আট জনের নাম উল্লেখ করে থানায় উপস্থিত হয়ে মামলা করেন বাদী আব্দুর রাজ্জাক।

স্থানীয় ও ভু্ক্তভোগীর পরিবার সূত্রে জানা যায়, উপজেলার সদর ইউনিয়নের চকরিপুর গ্রামের হঠাৎপাড়ায় ছাগলে পাট গাছ খাওয়াকে কেন্দ্র করে এই হামলার ঘটনা ঘটে।

উল্লেখ্য যে, গত ২২ শে মে (শনিবার) দুপুরে চকরিপুর গ্রামের হঠাৎপাড়ার ইসমাইল (৭০) এর পাটের খেতে ছাগল ঢুকে পাট গাছ খায় প্রতিবেশী হান্নানের (৪৫) ছাগল। প্রতিবেশী হান্নানের ছাগল পাট গাছ খাওয়ায় ছাগল বেধে রাখতে বলায় ইসমাইল হোসেন। আর ছাগল বেধে রাখতে বলার প্রেক্ষিতে দুজনের মধ্যে বাকবিতন্ডার সৃষ্টি হয়।

এসময় প্রতিবেশিরা সমঝোতা করে দিলে একপর্যায়ে তারা দুজনই শান্ত হয়ে নিজ নিজ বাড়ি চলে যায়। কিন্তু গত রবিবার (২৩শে মে) সকালে ইমাঈলের নাতি ছেলেকে হান্নানের ছোট ছেলে আলীরাজ (১৫) খেলার ছলে মারপিট করে। এরপর হান্নান, রবেল, জিন্না, তৈয়ব, নাজিম খান, উসমান, আলীরাজসহর অজ্ঞাত আরও ৩/৪ মিলে ইসমাইলের বাড়িতে রড, হাসুয়া, বাটামসহ দেশীয় অস্ত্র নিয়ে হামলা চালায় ইসমাইল ওপর।

এসময় বৃদ্ধ ইসমাইলকে মারপিট থেকে বাঁচাতে ইসমাইলের স্ত্রী রোমেছা খাতুন, মেয়ে নাসিমা খাতুন, ছেলে আব্দুর রাজ্জাক ও তার স্ত্রী শিলা খাতুন ছুটে আসলে তাদেরকেও মারপিট করে গুরুতর আহত করে। পরবর্তী সময়ে স্থানীয়রা গুরুতর আহত অবস্থায় তাদেরকে উদ্ধার করে খোকসা ৫০ শয্যা বিশিষ্ট উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে।

বর্তমানে গুরুতর আহত অবস্থায় ইসমাইল, তার স্ত্রী রোমেছা খাতুন ও তার মেয়ে নাসিমা খাতুন চিকিৎসাধীন রয়েছে। গ্রেফতারের পর খোকসা থানার সাব-ইন্সপেক্টর প্রশান্ত দাস জানান, অবৈধভাবে মারপিট করায় আব্দুর রাজ্জাক বাদী হয়ে একটি মামলা দায়ের করেন।

মামলা দায়েরের পর খোকসা থানার অফিসার ইনচার্জ কামরুজ্জামান তালুকদারের নির্দেশনায় আমি সঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে রাতেই এজাহারে উল্লেখিত আসামিদের আটক করি।

এ বিষয়ে খোকসা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা কামরুজ্জামান তালুকদার জানান, বাদী আব্দুর রাজ্জাকের অভিযোগের ভিত্তিতে গতকাল রাতেই আমরা অভিযান চালিয়ে ৭ জন আসামিকে আটক করতে সক্ষম হয়। এবং পরবর্তীতে আসামিদের কারাগারে প্রেরণ করা হয়েছে।

 


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরও খবর
Theme Created By Uttoronhost.com